1. admin@dailyteligraf.com : admin :
শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২৩, ০৪:৫৭ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
চট্রগ্রামে এবার ফুসফুসের বিভিন্ন রোগ নির্ণয় পরীক্ষা হবে এপিক হেলথ কেয়ার সেন্টারে সোনারগাঁও পৌর আ’লীগের কর্মী সম্মেলনে কবির হোসেনের বিশাল শোডাউনে যোগদান সোনারগাঁও পৌর আ’লীগের কর্মী সম্মেলনে আসাদুল ইসলাম আসাদ দৃষ্টিনন্দন শোডাউনে যোগদান সোনারগাঁয়ে যমুনা ব্যাংক লিমিটেড উপশাখার শুভ উদ্বোধন সোনারগাঁয়ে সন্ত্রাসীদের হাত থেকে যুবককে বাচাঁতে গিয়ে হামলার শিকার হলেন ব্যবসায়ী বান্দরবান পার্বত্য জেলার শ্রেষ্ঠ থানা নির্বাচিত লামা থানা চট্টগ্রামমে সাড়ে ৯ কোটি টাকা পেলেন ৪৪ ভূমি মালিক চট্টগ্রাম বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল থেকে পুলিশের সঙ্গে বিএনপির সংঘর্ষ, আটক ২০ চট্টগ্রাম বন্দরে যুক্তরাজ্যের রাজকীয় নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজ নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে মনোনয়ন ফরম জমা দিলেন এডভোকেট মো: ফিরোজ মিয়া

ঠাকুরগাঁও সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) তানভিরুল ইসলাম নিজে তৈরি করে দিলেন পানি নিষ্কাশনের নালা

  • আপডেট সময় : বুধবার, ২৩ জুন, ২০২১
  • ২৯৮ বার পঠিত

আব্দুল্লাহ্ আল সুমন বিশেষ প্রতিনিধি (ঠাকুরগাঁও):- ঠাকুরগাঁও রোড শুক ব্রীজ সংলগ্ন চার লেনের রাস্তার পাশ্ববর্তী জায়গায়গুলো বালি ও মাটি দিয়ে ভরাট করে উচু করে রাখায় একটু বৃষ্টি হলেই হাটুজল লেগে থাকে রাস্তাটিতে। ফলে দূর্ভোগ চরমে গিয়ে ঠেকেছে মানুষের। অনেকের ময়লা পানিতে কাপড় নষ্ট হয় যায়। অনেক পথচারী আবার সেখানকার ছেটানো পানিতে খানিকটা গোসলও করে ফেলে। কিন্তু পানি নিস্কাশনের কোন ব্যবস্থা সেখানে ছিলোনা।

এই দুর্ভোগ দেখে ঠাকুরগাঁও সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) তানভিরুল ইসলাম গাড়ি থেকে নেমে মাটি ভরাট করা শ্রমিকের হাত থেকে কোদাল নিয়ে নিজে তৈরি করে দিলেন পানি নিষ্কাশনের নালা। সে নালা দিয়ে যখন পানিটি প্রবাহিত হচ্ছিলো তখন পাশে থাকা এক মানুষ বলে উঠলেন ওসি’র কেটে দেয়া নালা দিয়ে পানি নয় যাচ্ছে জনদুর্ভোগ। এর জন্য তিনি সহ উপস্থিত সকলে ঠাকুরগাঁও সদর থানার ওসিকে হাসি মুখে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতাও জানালেন।

ঠাকুরগাঁও সদর থানার ওসি তানভিরুল ইসলাম বলেন, অনেকটা পানি এখানে জমাট বেঁধে ছিলো। নিষ্কাশনের কোন পথ ছিলোনা। মানুষজন খুব দুর্ভোগ পোহাচ্ছিলো। তাই নিজ হাতে কোদাল দিয়ে মানুষের দুর্ভোগ কমাতে একটু চেষ্টা করলাম মাত্র।

এদিকে মাটি যারা ভরাট করছিলো সেসব জমির মালিকদের একাংশ জানালেন, ড্রেন না থাকায় পানিটি এখানে বদ্ধ হয়ে থাকে!

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে আগে এ রাস্তায় কখনো পানি আটকে থাকতোনা। রাস্তার পাশে শুক নদী। রাস্তার পানি যেনো সহজে যেতে পারে এবং রাস্তা যেনো ভাঙ্গে না যায় সে জন্য বাঁধ ও তৈরি করা আছে। কিন্তু তারপরেও পানি আটকে থাকছে। কারনা মাটি দিয়ে বাঁধ ও পানি নির্গমের রাস্তা সব ‍বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। আগে তো বাঁধ বেয়ে পানিটা চলে যেতো। কিন্তু এখন সব মাটি দিয়ে ভরাট করে ফেলায় পানি যেতে পারছেনা। এ সমস্যাটির দ্রুত সমাধান চায় মানুষজন।

এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট দপ্তর গুলোতে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে সমস্যাটি সরজমেনি দেখে ব্যবস্থা গ্রহণ করার কথা বলেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর
© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১  ডেইলি টেলিগ্রাফ
Theme Customized By Theme Park BD