1. admin@dailyteligraf.com : admin :
শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৫:১৪ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
গাজীপুরে পুলিশের ধাওয়া খেয়ে ট্রেনে কাটা পড়লেন লেবু বিক্রেতা গাজীপুর টঙ্গীতে নৌকার পহ্মে তরিকা পন্থী ঐক্য পরিষদের উঠান বৈঠক ই-নামজারী জমাখারিজে অনলাইনে সকল সুযোগ সুবিধা পাচ্ছেন সদর উপজেলার সাধারণ জনগণ জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার লক্ষে শামীম ভাইয়ের হাত ধরে এগিয়ে যাব এডভোকেট ফজলে রাব্বি সারাদেশে বিএনপির হত্যা, নৈরাজ্য ও আগুন সন্ত্রাসের প্রতিবাদে সোনারগাঁওয়ে আ’লীগের বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সভা দৈনিক স্বদেশ প্রতিদিন পত্রিকার ১০ম বর্ষপুর্তি উপলক্ষে সোনারগাঁয়ে দোয়া ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত সোনারগাঁ পৌরসভার স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি পদপ্রার্থী সাবিকের বিশাল শোডাউন টঙ্গী পূর্ব থানা ছাত্রলীগের সভাপতি হিসেবে সকলের দোয়া চায় -স্বপন মৃধা ডিভোর্সের জের ধরে স্বামীর বিরুদ্ধে স্ত্রীর যৌতুক মামলা বে-সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয় করণের দাবীতে সংবাদ সম্মেলন

বিগত বছরের তুলনায় শিশু নির্যাতন বেড়েছে দ্বিগুণ

  • আপডেট সময় : শনিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩
  • ৮১ বার পঠিত

মাসুদ পারভেজঃ চট্টগ্রাম: সিএমপি’র ১৬ থানা এলাকায় শিশু নির্যাতন বেড়েছে। ২০২১ সালের চেয়ে ২০২২ সালে শিশু নির্যাতনের ঘটনায় মামলা হয়েছে দ্বিগুণ।

২০২২ সালের চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) বার্ষিক প্রতিবেদনে শিশু নির্যাতনের এ তথ্য উঠে এসেছে। এছাড়া চট্টগ্রাম জেলার ১৮ থানায় শিশু নির্যাতনের মামলা বাড়ছে।

২০২২ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত সিএমপির ১৬ থানা থেকে সংগৃহীত তথ্যের ভিত্তিতে তৈরি করা প্রতিবেদন সূত্রে জানা যায়, ২০২২ সালে শিশু নির্যাতনের ঘটনা মামলা হয়েছে ১৪৩টি। ২০২১ সালে মামলা হয়েছিল ৬৬টি।

২০২২ সালে চট্টগ্রাম জেলার ১৮ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতনের মামলা হয়েছে ৩২৩টি। এর মধ্যে অধিকাংশই শিশু নির্যাতনের মামলা বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রাম আদালতের নারী ও শিশু নির্যাতন সংক্রান্ত সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও)।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যথাযথ তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে যেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল দ্রুত বিচার করতে পারেন, সেজন্য জনবল বাড়াতে হবে। আইন প্রয়োগে নজরদারি রাখতে হবে। পারিবারিক সহিংসতা বন্ধে যে আইন রয়েছে, তা মূলত প্রতিরোধমূলক। সেটিও ঠিকঠাক প্রয়োগ করা হচ্ছে না। এজন্য কিছু সুপারিশ করা হয়েছে।

সুপারিশগুলোর মধ্যে রয়েছে- সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও কর্মক্ষেত্রে ২০০৯ সালে হাইকোর্টের নির্দেশ অনুসারে যৌন হয়রানি প্রতিরোধ কমিটি গঠন, বাল্যবিবাহ, পারিবারিক নির্যাতনসহ নারী ও শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে জনসচেতনতা বাড়াতে সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে একসঙ্গে কাজ করা, মামলাগুলোর দ্রুত বিচার করা, মামলার তদন্ত রাজনৈতিক ও প্রভাবশালীদের হস্তক্ষেপমুক্ত রাখা, প্রান্তিক গোষ্ঠীর (প্রতিবন্ধী, হিজড়া) জন্য বৈষম্যহীন আইন পরিষেবা নিশ্চিত করা, সব ধরনের ধর্ষণ আইনের আওতাভুক্ত করার জন্য ধর্ষণের সংজ্ঞায় পরিবর্তন আনা, নির্যাতনের ঘটনা ঘটার পর সাংবাদিকদের তা প্রকাশ ও নিয়মিত ফলোআপ করা ইত্যাদি।

চট্টগ্রাম জেলার নারী ও শিশু নির্যাতন সংক্রান্ত সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা এসআই মল্লিকা দাশ রায় বলেন, গত জানুয়ারি মাসে চট্টগ্রাম জেলায় নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনায় ১২৩টি মামলা হয়েছে। এর মধ্যে ১শ মামলা শিশু নির্যাতনের ঘটনায় হয়েছে।

চট্টগ্রাম ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারের ইনচার্জ ও সিএমপির এডিসি (পিআর) স্পিনা রানী প্রামাণিক বলেন, একসময় অনেক বেশি নারী ও শিশু নির্যাতিত হতো। তারা কোথায় যেতে হবে ও মামলা করতে হবে, তা জানতো না। পুলিশের নানা ধরনের উদ্যোগের কারণে নারী ও শিশু নির্যাতনের মামলার সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য সমাজবিজ্ঞানী ড.ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, শিশুরা অবুঝ, অল্পকিছুতে পোষ মানানো যায়। আজকাল শিশু -কিশোরদের দিয়ে মাদক পাচার থেকে শুরু করে অসামাজিক কাজ করানো হচ্ছে। কাজ করতে না চাইলে তাদের নির্যাতন করা হচ্ছে। এজন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে আরও কঠোর হতে হবে। শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে মা-বাবা, শিক্ষক, স্বাস্থ্যকর্মী, সমাজকর্মী, সুশীল সমাজ, গণমাধ্যম-সবাইকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে ভূমিকা পালন করতে হবে। শিশু-সংবেদনশীল একটি সমাজ গড়ে তোলার দায়িত্ব আমাদের সবার। শিশুদের অধস্তন করে দেখার সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গিতে পরিবর্তন আনা জরুরি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর
© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১  ডেইলি টেলিগ্রাফ
Theme Customized By Theme Park BD