1. admin@dailyteligraf.com : admin :
শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২৩, ০৩:১৪ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
চট্রগ্রামে এবার ফুসফুসের বিভিন্ন রোগ নির্ণয় পরীক্ষা হবে এপিক হেলথ কেয়ার সেন্টারে সোনারগাঁও পৌর আ’লীগের কর্মী সম্মেলনে কবির হোসেনের বিশাল শোডাউনে যোগদান সোনারগাঁও পৌর আ’লীগের কর্মী সম্মেলনে আসাদুল ইসলাম আসাদ দৃষ্টিনন্দন শোডাউনে যোগদান সোনারগাঁয়ে যমুনা ব্যাংক লিমিটেড উপশাখার শুভ উদ্বোধন সোনারগাঁয়ে সন্ত্রাসীদের হাত থেকে যুবককে বাচাঁতে গিয়ে হামলার শিকার হলেন ব্যবসায়ী বান্দরবান পার্বত্য জেলার শ্রেষ্ঠ থানা নির্বাচিত লামা থানা চট্টগ্রামমে সাড়ে ৯ কোটি টাকা পেলেন ৪৪ ভূমি মালিক চট্টগ্রাম বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল থেকে পুলিশের সঙ্গে বিএনপির সংঘর্ষ, আটক ২০ চট্টগ্রাম বন্দরে যুক্তরাজ্যের রাজকীয় নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজ নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে মনোনয়ন ফরম জমা দিলেন এডভোকেট মো: ফিরোজ মিয়া

সোনারগাঁয়ে লকডাউনে তৎপর প্রশাসন, মাস্ক নেই নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এর মুখে

  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২২ জুন, ২০২১
  • ৩১৬ বার পঠিত

আরিফুল ইসলাম শামিমঃ করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে আজ মঙ্গলবার সকাল ছয়টা থেকে সোনারগাঁ উপজেলায় শুরু হয়েছে কঠোর লকডাউন। সকাল থেকে মোগরাপাড়া চৌরাস্তা প্রবেশমুখে পুলিশ-আনসার সদস্যরা তল্লাশিচৌকি বসিয়েছেন। শহরের বাইরে থেকে জরুরি প্রয়োজনে আসা ইজিবাইকের যাত্রীদের নামিয়ে দেওয়া হচ্ছে। হেঁটেই গন্তব্যে ছুটছে মানুষ। অনেকে বিনা প্রয়োজনে বাড়ি থেকে বের হয়ে পড়ছে পুলিশি জেরার মুখে।

লকডাউনের নির্দেশনায় জরুরি পণ্যসেবার দোকান ছাড়া অন্য সব দোকান ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার ঘোষণা থাকলেও বেশ কিছু ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ও দোকানের অর্ধেক খোলা রেখে ব্যবসা চালু রয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মানাতে জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভায় লকডাউন পালনে প্রশাসনের পাশাপাশি জনপ্রতিনিধি ও অন্যান্য সামাজিক সংগঠনের নেতারা মাঠে থাকার কথা থাকলেও আনসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ছাড়া কাউকে চোখে পড়েনি ।

আজ সকাল সাড়ে নয়টায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে মোগরাপাড়া চৌরাস্তা মোড়ে পুলিশ ও আনসার সদস্যদের তৎপরতা দেখা গেছে। তাঁরা ইজিবাইক আটকিয়ে যাত্রীদের জিজ্ঞাসাবাদ করছেন। হাসপাতালে যাওয়ার কথা শুনলে দেখে নিচ্ছেন চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র। উপযুক্ত প্রমাণ দিতে না পারলে ফেরত পাঠিয়ে দিচ্ছেন।

সোনারগাঁয়ে চৌরাস্তা বাজার এলাকায় রাসেদুল ইসলাম রাসেল বলেন, ‘লকডাউনের কথা শুনেছি। মাইকিং শুনেছি। বিশ্বাস করিনি। বাড়ির বাইরে এসে দেখি অনেকেই তো আসছে। বাজারঘাট করতে যাই।’

পানাম এলাকায় কথা হয় মোঃ ফারুকের সঙ্গে। বাড়ি থেকে বের হয়েছেন কেন? ফারুকের উত্তর, ‘কোথায় লকডাউন, সবকিছুইতো চলছে। বাজার ঘুরে দেখেন, মানুষের হাট লেগে গেছে।

বেলা ১১টায় মোগরাপাড়া চৌরাস্তা কাঁচাবাজারে ব্যাগ হাতে আনিসুর রহমান বলেন, প্রশাসন মানুষের ভালোর জন্য লকডাউন ঘোষণা করেছে।এখানে প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার মুখেই মাস্ক নেই, প্রশাসন নিজেই যদি স্বাস্থ্যবিধি মানতে না চায়। সাধারন মানুষ কিভাবে সচেতন হবে। তিনি আরও বলেন, ‘বাজার তো ঘুরে দেখলাম, অনেকের মুখে মাস্ক নেই, মাস্ক আটকিয়ে রাখছে থুতনিতে। রাজধানীর ভেতরে হয়তো লকডাউন চলছে, কিন্তু পাড়ামহল্লায় লকডাউন বলেন আর স্বাস্থ্যবিধি বলেন, কেউ মানতে চায় না।’

সকাল থেকে লকডাউন পালনে কিছুটা কড়াকড়ি থাকলে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ঢিলেঢালাভাব শুরু হয়।  নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ঘুরে ঘুরে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে টহল দিচ্ছেন। কিন্তু প্রশাসন চলে গেলেই আগের অবস্থায় ফিরে যাচ্ছে সবাই।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর
© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১  ডেইলি টেলিগ্রাফ
Theme Customized By Theme Park BD